shopner bd
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
×

নর্থ সাইপ্রাসে বাংলাদেশি দম্পতির কৃতিত্ব

  স্বপ্নের বাংলাদেশ ডেস্ক    ২১ জুন ২০২১, ১৬:৩৯

নর্থ সাইপ্রাসে বাংলাদেশি দম্পতির কৃতিত্ব

ইউরোপের ভূমধ্যসাগরে অবস্থিত দ্বীপ রাষ্ট্র নর্থ সাইপ্রাসে প্রায় ৩ হাজার বাংলাদেশি রয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি এখানে আসে। তার মধ্যে অর্ধেক আসে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায়, বাকিরা স্টুডেন্ট ভিসায়।

এ দেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রতি বছর অসংখ্য স্টুডেন্ট আসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে। এ দেশের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিকভাবে সুনাম অর্জন করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ালেখার মান অত্যন্ত ভালো এবং আন্তর্জাতিক মানের। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হলো- বাংলাদেশিরা এ দেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছে। তারা পড়ালেখার জন্য গেলেও ছয় মাস/এক বছর পর কেউ পড়াশোনা চালিয়ে নেন না। বেশিরভাগই পার্শ্ববর্তী দেশ গ্রিক সাইপ্রাসে চলে যায়।

কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাংলাদেশি স্টুডেন্টদের সুনাম থাকলেও সেটা প্রায় ক্ষুণ্ন হওয়ার পথে। স্নাতক শেষ করেছে এমন বাংলাদেশির সংখ্যা হাতেগোনা। মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছে মাত্র দুইজন।

ঠিক এমন সময় সালেহ আহমেদ ও শাহিনুর আক্তার দম্পতি নর্থ সাইপ্রাসে এক অনন্য রেকর্ড করেছেন। তারা দুজন একসঙ্গে গিরনে আমেরিকান ইউনিভার্সিটি থেকে সম্মাননার সঙ্গে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। গেল ১৮ জুন ইউনিভার্সিটি থেকে তাদেরকে সম্মাননা জানানো হয়। নর্থ সাইপ্রাসের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো বাংলাদেশি দম্পতি একসঙ্গে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছে।

নর্থ সাইপ্রাসে যেখানে প্রায় সবার পড়াশোনা চালিয়ে নেয়া অসম্ভব, সালেহ আহমদ দম্পত্তি সেই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখিয়েছেন।

সালেহ আহমদ ২০০৯ সালে পাড়ি জমিয়েছিলেন নর্থ সাইপ্রাসে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক নিয়ে ব্যাচেলর করার সময় তিনি বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে কাজ করে পড়াশোনার খরচ সংগ্রহ করতেন। পাশাপাশি বাড়িতেও টাকা পাঠাতেন। পড়াশোনা চালিয়ে নেয়াটা তার জন্য ছিল খুবই কষ্টের। তবে তিনি থেমে থাকেননি। অবশেষে সফলতার দেখা পান ২০১৪ সালে। ব্যাচেলর শেষ করার পর তিনি সাইপ্রাস আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্সে ভর্তি হন এবং সেখানে পড়াশোনা করা অবস্থায় অ্যাডমিশন রিপ্রেজেনটেটিভ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী অ্যাডমিশন অফিসে যুক্ত হন।

তিনি ২০১৮ সালে সাইপ্রাস আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অধ্যয়ন শেষ করে গিরনে আমেরিকান ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হন। একাডেমিক রেজাল্ট ভালো করার ফলে তিনি সেখানে রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করার সুযোগ পান। রোহিঙ্গা রিফিউজি ক্রাইসিস নিয়ে মাস্টার্সে থিসিস করেন। থিসিসে তিনি রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বাংলাদেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন এবং বৈশ্বিক রাজনীতিতে রোহিঙ্গা ক্রাইসিসের প্রভাব তুলে ধরেন।

সালেহ আহমেদ বাংলাদেশি কমিউনিটি ইন নর্থ সাইপ্রাসের একটি আলোচিত নাম। তিনি বাংলাদেশি স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন নর্থ সাইপ্রাসের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। সালেহ আহমেদ নরসিংদীর আমিরগঞ্জ রায়পুরার সিরাজুল ইসলাম ও হোজাইফা বেগমের কনিষ্ঠ পুত্র।

শাহিনুর আক্তার ২০১৯ সালে নর্থ সাইপ্রাসে পাড়ি জমিয়েছিলেন। তিনি শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষি অর্থনীতিতে ব্যাচেলর শেষ করে নর্থ সাইপ্রাসে পাড়ি জমান। তিনি সর্বোচ্চ সম্মান (একাডেমিক হাই-অনার) নিয়ে অর্থনীতিতে মাস্টার্স করেন। শাহিনুর শরীয়তপুরের আব্দুর রহমান ও হাসিনা বেগমের প্রথম মেয়ে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র

প্রধান সম্পাদকঃ মোহাম্মদ আবুল বশির
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মনির হোসেন
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়ঃ ৩৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫

মোবাইলঃ +৮৮ ০১৮১৩ - ৮১৮৬৯৬

ফোনঃ +৮৮ ০২ - ৫৫০১৩৯৩৯

ইমেইলঃ shwapnerbd@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।