shopner bd
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
×

নারীদের ত্রাণশিবিরে যেতে দেয় না এই গ্রাম

  স্বপ্নের বাংলাদেশ ডেস্ক    ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০০

ভয়াবহ বন্যার কবলে পাকিস্তান
ভয়াবহ বন্যার কবলে পাকিস্তান

চারপাশ ভেসে গেলেও, খাবারের অভাব দেখা দিলেও বাড়ি ছাড়া যাবে না। বাড়ি ছেড়ে ত্রাণশিবিরে গেলেই নাকি ‘সম্মানহানি’ হবে! আর তাই উদ্ধার করে ত্রাণশিবিরে নিয়ে যেতে চাইলেও সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করছেন নারীরা। বিষয়টি শুনে অবাক লাগলেও, এমনটাই ঘটছে পাকিস্তানের ছোট্ট একটি গ্রাম বস্তি আহমদ দিনে।

ভয়াবহ বন্যার সঙ্গে যুঝছে গোটা পাকিস্তান।প্লাবিত পাকিস্তানের এই গ্রামটিও। মোট ৪০০ জনের বাস বস্তি আহমদ দিন গ্রামে। মূলত তুলো চাষ করে সংসার চালান তারা। বালোচ সম্প্রদায়ের মানুষের বাস এই গ্রামে। চারপাশ যখন ভেসে গিয়েছে, এই গ্রামের মানুষদের উদ্ধার করতে এসেছিল প্রশাসন। কিন্তু কেউই বাড়ি ছাড়তে রাজি হননি। বিশেষ করে নারীরা। তাদের যুক্তি এটা নীতিবিরুদ্ধ কাজ।

কেননা, ত্রাণশিবিরে নারীরা গেলে সেখানে আরও অনেক পুরুষ থাকবেন, তাই সেই অচেনা পুরুষদের সঙ্গে ত্রাণশিবিরে কাটানো ‘সম্মানহানি’র শামিল। ঘরে খাদ্য দিন দিন কমছে, এর পর অভুক্ত থাকতে হবে। কিন্তু এমন পরিস্থিতি এলেও তারা যে বাড়ি ছাড়বেন না, সে কথা সংবাদ সংস্থা এএফপি-কে স্পষ্ট জানিয়েছেন গ্রামবাসীরা।

গ্রামেরই এক নারী শিরিন বিবিকে প্রশ্ন করা হয়, পানির মধ্যে থাকার চেয়ে ত্রাণশিবিরে আপনি তো অনেক সুরক্ষিত থাকবেন! তা হলে কেন সেখানে যাচ্ছেন না? এ প্রশ্নের উত্তরে শিরিন বিবি বলেন, বাড়ি ছাড়ব কি না, তা সিদ্ধান্ত নেবেন বাড়ির বয়স্করা।

এদিকে, ত্রাণশিবিরে যেতে না চাওয়া পরিবারগুলিকে খাবার জোগান দিচ্ছে প্রশাসন। একই সঙ্গে গ্রাম ছেড়ে ত্রাণশিবিরে যাওয়ারও অনুরোধ করা হচ্ছে। কিন্তু গ্রামবাসীদের কাছে ‘সম্মানরক্ষা’ আগে। তাই ত্রাণশিবিরে না গিয়ে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে কাছাকাছি ত্রাণশিবিরগুলি থেকে ওষুধ এবং খাবার সংগ্রহ করে আনছেন বস্তি আহমদ দিনের বাসিন্দারা।

মুহম্মদ আমির নামে এক গ্রামবাসী বলেন, আমরা বালোচ। বালোচরা তাদের ঘরের নারীদের বাইরে যাওয়ার অনুমতি দেয় না। না খেয়ে মরব, কিন্তু পরিবারের সদস্যদের ঘরের বাইরে যেতে দেব না।

গ্রামের প্রবীণরা বলেন, একমাত্র কোনও আপৎকালীন পরিস্থিতি হলেই নারীদের ঘরের বাইরে বেরোনোর অনুমতি দেওয়া হয়। মুরিদ হুসেন নামে একজন বলেন, ২০১০ সালে যখন ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল, সেই সময়েও আমরা ঘর ছাড়িনি। আমাদের বাড়ির নারীদের ত্রাণশিবিরে যেতে দিইনি। কেননা, এটা সম্মানরক্ষার বিষয়।

সূত্র: এনডিটিভি, আনন্দবাজার

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র

প্রধান সম্পাদকঃ মোহাম্মদ আবুল বশির
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মনির হোসেন
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়ঃ ৩৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫

মোবাইলঃ +৮৮ ০১৮১৩ - ৮১৮৬৯৬

ফোনঃ +৮৮ ০২ - ৫৫০১৩৯৩৯

ইমেইলঃ shwapnerbd@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।